সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩, ১১:৫৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
তিন জেলার করতোয়ার মোহনায় ভাঙ্গন রোধে কোটি টাকা ব্যয় অপর প্রান্তে বালু মাটি কেটে সাভার পলাশবাড়ীতে মনগড়া ভাবে মাদ্রাসা ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় পরিচালনা দেখার নেই পলাশবাড়ী মাঠেরহাট বাজার আবু বক্কর ফাজিল ডিগ্রী মাদ্রাসা ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ গাইবান্ধায় পত্রিকা হকারদের মাঝে রিপোর্টার্স ইউনিটির “শীতবস্ত্র বিতরণ” পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানের পরেও বন্ধ হয়নি ইটভাটা পোড়ানো হচ্ছে প্ল্যাস্টিকের জুতা  গোবিন্দগঞ্জে এপেক্স ক্লাবের উদ্যোগে এতিম মেয়ের বিবাহের জন্য নগদ আর্থিক সহায়তা প্রদান ফুলছড়িতে আগুনে ৬টি শয়ন ঘরসহ মালামাল পুড়ে ছাই ২টি পরিবারের গোবিন্দগঞ্জে রাখালবুরুজ ফকির পাড়া গ্রামে জমিজমা নিয়ে বিরোধের জেরে পুকুরে বিষ প্রয়োগে মাছ নিধনের অভিযোগ পলাশবাড়ীতে দুটি অবৈধ ইটভাটা ১১ লাখ টাকা জরিমানা ও বন্ধে মুচলেকা  সাদুল্লাপুরে জোনার ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে কুরআন শরীফ প্রদান।

ডাঃ মোজাফ্ফর আহমেদ আই কেয়ার সেন্টার,গাইবান্ধা । ০১৭৬৭-৩০৬৭০২

কঠোর লকডাউন গাইবান্ধা ট্রাফিক পুলিশ কঠোরতাঃ জনজীবনে কোনো প্রভাব নেই সদর থানা পুলিশ

সঞ্জয় সাহাঃ
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ৪ জুলাই, ২০২১

সরকার ঘোষিত কঠোর লকডাউনের চতুর্থ দিন চলছে রবিবার। কিন্তু কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে জনজীবনে কোনো প্রভাব পড়েনি সদর থানা পুলিশ। এ ক্ষেত্রে ট্রাফিক পুলিশ কঠোরতা প্রশংসনীয়। সদর থানা পুলিশ শুধু মটর সাইকেল নিয়ে শহর চক্কর দিয়েই ক্ষ্যান্ত। কঠোর লকডাউন চিত্র যেমনটা হওয়া উচিৎ তেমন কাজে মিল নাই সদর থানা পুলিশ সদস্যদের কাজে। লোক দেখানো মাত্র বিভিন্ন মোড়ে দু একটি যানবাহন গতিরোধ করাই যেন তাদের কাজ। কিন্তু গাইবান্ধা ট্রাফিক পুলিশ কঠোর লকডাউনের চিত্র বাস্তবায়নে যথেষ্ট ভূমিকা রাখছে। সড়কে যানবাহন চলাচল সীমিত করতে জেলা ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা বিভিন্ন সড়কে দায়িত্ব পালন করছেন।

কঠোর লকডাউন নানা অজুহাতে ঘর থেকে বের হওয়া মানুষদের চলাচলে বাধা দিয়ে প্রশ্নের সম্মুখীন করে বাসার দিকে যেতে বাধ্য করছে ট্রাফিক পুলিশ। সে সাথে শহরে যত্রতত্রভাবে চলাচলকারী খালি রিক্সাগুলোকে প্রবেশে বাধা দিতে দেখা গেছে ট্রাফিক পুলিশ ইনচার্জ নূর আলম সিদ্দিক সহ তার ট্রাফিক সদস্যদের। এতে করে গত কয়েকদিনের চেয়ে কঠোর লকডাউন চিত্র কিছুটা উঠে আসে। কিন্তু গত ৪ দিনে গাইবান্ধা সদর থানা পুলিশ এ বিষয়ে কোনো ভূমিকাই চোখে পড়েনি।

 

প্রকাশ, লকডাউনে জেলা ও উপজেলা শহরের মার্কেট ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও অলি-গলির দোকানপাট খোলা দেখা গেছে। প্রধান সড়ক ও শহরের রাস্তাঘাটে বেড়েছে রিকশা-ভ্যানসহ বিভিন্ন যানবাহন চলাচল আর মানুষের সংখ্যা। শহরমুখি এসব মানুষ কোনভাবেই মানছেন না স্বাস্থবিধি। এমনকি অধিকাংশ মানুষকেই দেখা যায়নি মুখে মাস্ক ব্যবহার করতে। লকডাউনের বিধি-নিষেধ ও স্বাস্থবিধি অমান্য করায় জেলাজুড়েই পরিচালিত হচ্ছে ভ্রাম্যমান আদালত। ভ্রাম্যমান আদালতে প্রতিদিনেই জরিমানা করা হলেও নানা অজুহাতে ঘর থেকে বের হচ্ছেন মানুষ। আর এই অপ্রয়োজনে শহরে মানুষের প্রবেশ ঠেকাতে গাইবান্ধা ট্রাফিক পুলিশ শহরে হকার্স মার্কেট কাছে কঠোর অবস্থান নেয়।

কঠোর লকডাউনের চতুর্থ দিন রবিবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত জেলা শহরের বিভিন্ন মোড় ও গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় মানুষকে সচেতন করতে দেখা গেছে ট্রাফিক পুলিশ সহ আইনশৃঙ্খলা বাহীনির সদস্যদের। পাশাপাশি শহর ও বিভিন্ন সড়কে টহল দিতে দেখা গেছে পুলিশের পাশাপাশি সেনাবাহিনী,বিজিবি ও র‌্যাব সদস্যদের।

 

বিডি গাইবান্ধা/

Print Friendly, PDF & Email

যমুনা প্লাজা,গাইবান্ধা -01740569856

জিনিয়াস কিন্ডার গার্টেন এন্ড স্কুল ও জিনিয়াস এডুকেয়ার

সংবাদ টি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আজকের নামাজের সময়সুচী

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৫:২৭ পূর্বাহ্ণ
  • ১২:১৪ অপরাহ্ণ
  • ১৬:০৩ অপরাহ্ণ
  • ১৭:৪৩ অপরাহ্ণ
  • ১৯:০০ অপরাহ্ণ
  • ৬:৪১ পূর্বাহ্ণ
bdgaibandha.news©2020 All rights reserved
themesba-lates1749691102