সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩, ১১:৪০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
তিন জেলার করতোয়ার মোহনায় ভাঙ্গন রোধে কোটি টাকা ব্যয় অপর প্রান্তে বালু মাটি কেটে সাভার পলাশবাড়ীতে মনগড়া ভাবে মাদ্রাসা ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় পরিচালনা দেখার নেই পলাশবাড়ী মাঠেরহাট বাজার আবু বক্কর ফাজিল ডিগ্রী মাদ্রাসা ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ গাইবান্ধায় পত্রিকা হকারদের মাঝে রিপোর্টার্স ইউনিটির “শীতবস্ত্র বিতরণ” পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানের পরেও বন্ধ হয়নি ইটভাটা পোড়ানো হচ্ছে প্ল্যাস্টিকের জুতা  গোবিন্দগঞ্জে এপেক্স ক্লাবের উদ্যোগে এতিম মেয়ের বিবাহের জন্য নগদ আর্থিক সহায়তা প্রদান ফুলছড়িতে আগুনে ৬টি শয়ন ঘরসহ মালামাল পুড়ে ছাই ২টি পরিবারের গোবিন্দগঞ্জে রাখালবুরুজ ফকির পাড়া গ্রামে জমিজমা নিয়ে বিরোধের জেরে পুকুরে বিষ প্রয়োগে মাছ নিধনের অভিযোগ পলাশবাড়ীতে দুটি অবৈধ ইটভাটা ১১ লাখ টাকা জরিমানা ও বন্ধে মুচলেকা  সাদুল্লাপুরে জোনার ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে কুরআন শরীফ প্রদান।

ডাঃ মোজাফ্ফর আহমেদ আই কেয়ার সেন্টার,গাইবান্ধা । ০১৭৬৭-৩০৬৭০২

সিঁদুর ছোয়ানো, মিষ্টি মুখ ও প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হলো দুর্গোৎসব

সঞ্জয় সাহাঃ
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর, ২০২২

 গাইবান্ধা ব্রীজরোড দুর্গাবাড়ি মন্দির সহ পৌরসভার অধিনে ৬শ ৯টি মন্ডপে সিঁদুর ছোয়ানো ও মিষ্টি মুখ করানোর মধ্য দিয়ে ভক্তরা বিদায় জানায় দুর্গতিনাশিনী দেবী দূর্গাকে।

 

পরে রাতে বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হয় শারদীয় দুর্গোৎসব। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাস- মানুষের মনের আসুরিক প্রবৃত্তি কাম, ক্রোধ, হিংসা, লালসা বিসর্জন দেয়াই মূলত বিজয়া দশমীর মূল তাৎপর্য। এ প্রবৃত্তিগুলোকে বিসর্জন দিয়ে একে অন্যের সঙ্গে ভ্রাতৃত্বের বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠা করাই এ আয়োজনের উদ্দেশ্য। চন্ডীপাঠ, বোধন ও অধিবাসের মধ্যদিয়ে ষষ্ঠী তিথিতে ‘আনন্দময়ীর’ আগমনে গত ১ অক্টোবর থেকে দেশের হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গোৎসবের সূচনা হয়। পরবর্তী ৫দিন গাইবান্ধা শহর সহ জেলা জুড়ে পূজামন্ডপগুলোতে পূজা-অর্চণার মধ্যদিয়ে ভক্তরা দেবী দুর্গার প্রতি শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদন করেন। দশমী তিথিতে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে তা শেষ হয়।

এবার দেবী দুর্গা জগতের মঙ্গল কামনায় গজে (হাতি) চড়ে মর্ত্যালোকে (পৃথিবী) আসেন। এতে প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের অংশ বিশেষ ঝড় বৃষ্টি হয় এবং শস্য ও ফসল উৎপাদন বৃদ্ধি পাবার সম্ভাবনা রয়েছে। অন্যদিকে স্বর্গে বিদায় নেন নৌকায় চড়ে। যার ফলে জগতের কল্যাণ সাধিত হবে।

সকাল ১০ টা ৫০ মিনিটে দর্পণ- বিসর্জনের মাধ্যমে বিদায় জানানো হয় দেবী দুর্গাকে। পরে রাত ৮টা থেকে শুরু হয় প্রতিমা বিসর্জন। প্রথা অনুযায়ী প্রতিমা বিসর্জনের পর সেখান থেকে জল এনে (শান্তিজল) মঙ্গলঘটে নিয়ে তা আবার হৃদয়ে ধারণ করা হয়। আগামী বছর আবার এ শান্তিজল হৃদয় থেকে ঘটে, ঘট থেকে প্রতিমায় রেখে পূজা করা হবে। রামকৃষ্ণ মিশনে সন্ধ্যা আরতির পর মিশনের পুকুরে প্রতিমা বিসর্জন দেয়া হয়। এরপর ভক্তরা শান্তিজল গ্রহণ করেন ও মিষ্টিমুখ করেন।

সনাতন ধর্মের বিশ্বাস অনুযায়ী, বিসর্জনের মধ্য দিয়ে দেবী ফিরে গেলেন স্বর্গলোকের কৈলাসে স্বামীর ঘরে। পরের বছর শরতে আবার তিনি আসবেন এই ধরণীতে যা তার বাবার গৃহ। প্রতিমা বিসর্জনের জন্য সব ধরণের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করে  আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।   ঢাকের বাদ্য আর গান-বাজনার পাশাপাশি বিদায়ের করুণ ছায়ায় সারিবদ্ধভাবে একে একে শহরের নতুন ব্রীজ এর ঘাঘট নদীতে বিসর্জন দেয়া হয় প্রতিমা। গাইবান্ধা শহরের প্রায় ২১ টির মত মন্ডপের প্রতিমা বিসর্জন দেয়া হয় এই ঘাটে। সড়কে পুলিশের টহল এর পাশাপাশি মন্ডব ও নদীতেও ছিল পুলিশের উপস্থিতি।

 

সঞ্জয় সাহা:

Print Friendly, PDF & Email

যমুনা প্লাজা,গাইবান্ধা -01740569856

জিনিয়াস কিন্ডার গার্টেন এন্ড স্কুল ও জিনিয়াস এডুকেয়ার

সংবাদ টি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আজকের নামাজের সময়সুচী

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৫:২৭ পূর্বাহ্ণ
  • ১২:১৪ অপরাহ্ণ
  • ১৬:০৩ অপরাহ্ণ
  • ১৭:৪৩ অপরাহ্ণ
  • ১৯:০০ অপরাহ্ণ
  • ৬:৪১ পূর্বাহ্ণ
bdgaibandha.news©2020 All rights reserved
themesba-lates1749691102