মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ০৪:৩১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
সাদুল্লাপুরে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ১১ প্রার্থী বহিষ্কার গাইবান্ধা সদর থানায় যাওয়ার পথে কাকড়ায় চাপায় প্রান গেল বৃদ্ধের গাইবান্ধা নবাগত জেলা প্রশাসক অলিউর রহমান সাথে প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকগণের পরিচিতি সভা নিবন্ধন পেলেন  নিরাপদ যানবাহন চাই নিযাচা ফাউন্ডেশন। সিনিয়র এডভোকেট সিদ্দিকুল ইসলাম রিপুর নিজস্ব অর্থায়নে শীতবস্ত্র বিতরণ গাইবান্ধায় গরু হৃষ্টপুষ্টকরণে চুক্তিবদ্ধ ব্যবসায়ীদের কার্যক্রম পরিচিতি এবং দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ সাদুল্লাপুরের ফরিদপুরে নৌকার নির্বাচনী অফিসে হামলা-ভাঙচুরের অভিযোগ, আহত ৬  বাবার সাথে স্কুলে যাওয়া হলো না নাঈমের সাদুল্লাপুরের ইদিলপুরে নৌকা প্রার্থীর উঠান বৈঠক সাংবাদিক পলাশের নানীর ইন্তেকাল

নিরাপদ আশ্রয় ভেবে গাইবান্ধার যে বাড়িতে ছিলেন ত্ব-হা

গাইবান্ধা প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ২০ জুন, ২০২১

ধর্মীয় বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান গাইবান্ধায় নিরাপদে আত্মগোপনে থাকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে সাধারন মানুষজনের মধ্যে।

১১ জুন থেকে ১৮ জুন পর্যন্ত বাল্যবন্ধু সিয়াম ইবনে শরীফের (৩১) এর গাইবান্ধা জেলা সদরের ত্রিমোহনি স্টেশনের পশ্চিমে পিয়ারাপুর গ্রামের বাড়িতে আট দিন দুই সঙ্গী ও ভাড়া করা গাড়ির চালকসহ চারজন অবস্থান করলেও কারো নজর বা কানে কেন আসেনি বিষয়টি এ নিয়ে জেলার সর্বত্র ব্যাপক গুঞ্জনও শুরু হয়েছে। অনেকে আইন শ্ঙ্খৃলা বাহিনীরপ্রতি দৃষ্টি রেখে মনে করছেন তাহলে কি যেকেউ যেকোন ঘটনা ঘটিয়ে গাইবান্ধায় নিরাপদ অবস্থানের জন্য বেঁছে নিতে পারবে। যে গাড়িতে করে ত্ব-হা এবং আরও তিনজন গাইবান্ধা পিয়ারাপুরের ওই বাড়িতে এসেছেন, সেটাও দেখেননি আশপাশের কেউ। তবে, সিয়ামের মা নিশাত নাহারের দাবি, ত্ব-হার অনুরোধেই তিনি তার অবস্থানের কথা কাউকে বলেননি।
তবে, ত্ব-হার সন্ধান পাওয়ার পর এমনটা পুলিশ গাইবান্ধায় অবস্থানের কথা জানালেও বন্ধু সিয়ামের দাবি, বাড়িতে ত্ব-হার অবস্থানের বিষয়ে তিনি কিছুই জানতেন না।

ত্ব-হা ও তার সঙ্গীদের বহনকারী গাড়িটি এতদিন কোথায় ছিল? জানতে চাইলে নিশাত নাহার জানান ‘সেদিন দুপুরে যে গাড়িতে তারা এখানে এসেছিল, সেটা তখনই ফিরে যায় এবং শুক্রবার আবার সেই গাড়িই এসে তাদের নিয়ে যায়।’

বন্ধু সিয়াম চাকরির কারণে বর্তমানে রংপুরে অবস্থান করেন। সিয়ামের সাথে কথা হলে জানান, শনিবার বিকালে বলেন, ‘ত্ব-হা নিখোঁজ হওয়ার পর আমরা স্কুলের বন্ধুরা মিলে রংপুরে মানববন্ধনও করেছি। কিন্তু, জানতাম না সে আমাদের বাড়িতেই ছিল গত আট দিন।’

‘আমি ত্ব-হার বিষয়ে মায়ের সঙ্গে ফোনেও কথা বলেছি। কিন্তু, মা আমাকে কিছু বলেননি।’
সিয়াম বলেন, ‘আমি গতকাল বাড়িতে এসে শুনি তারা চলে গেছে।’

সিয়ামের মা নিশাত নাহার জানান সিয়াম ও আবু ত্ব-হা রংপুরের লায়ন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজে একসঙ্গে পড়াশোনা করেছেন। রংপুরের বাসায় ত্ব-হা নিয়মিত যাওয়া-আসা করতেন। তাদের মধ্যে বেশ ঘনিষ্ট বন্ধুত্ব রয়েছে এবং এর আগেও সে এখানে আসতো।তারা গত ছয় বছর ধরে গাইবান্ধায় আসা-যাওয়া। এখানেও নিয়মিত ত্ব-হার আসা-যাওয়া আছে বলে জানান সিয়ামের মা।তবে, ত্ব-হা এবং তার সঙ্গী আবদুল মুহিত, ফিরোজ আলম ও আমির উদ্দিন প্রায় এক সপ্তাহ সিয়ামের বাড়িতে থাকার বিষয়ে কিছুই জানেন না পাশের বাড়ির লোকজন।

 

সিয়ামের বাড়ির পাশের বাড়িতে থাকেন তার বড় চাচা বোয়ালি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এ এম আবদুল মাজেদ উদ্দিন খান, তার স্ত্রী নাজনীন চৌধুরী ও ছেলে আসিফ খান।চাচা মাজেদ উদ্দিন খান বলেন, ‘আমি চেয়ারম্যান মানুষ, খুব বেশি পাশের বাড়িতে খোঁজ নিতে পারি না। ত্ব-হা যে এখানে গত আট দিন লোকজন নিয়ে ছিল, সেটা আমরা কেউ জানি না।’সিয়ামের বাড়ির পাশেই তার ছোট চাচা সোহেল নেওয়াজ খান পরিবার নিয়ে থাকেন। তিনি এবং তার পরিবারও কিছু জানতেন না ত্ব-হার এখানে থাকার বিষয়ে। তবে, টিভিতে ত্ব-হার নিখোঁজ হওয়ার খবরটি শুনেছেন বলে জানান। গতকাল যখন একটি সাদা গাড়ি তারা এখান থেকে রংপুরের উদ্দেশে রওনা দেয়, তখন শুধু দেখেছেন বলে উল্লেখ করেন।

নিশাত নাহারের সঙ্গে কথা বলার সময় পাশের বাড়ির এক গৃহকর্মী এসেছিলেন বাড়িতে। কিন্তু, নিশাত নাহার তাকে বাড়িতে ঢুকতে নিষেধ করেন। পরে এই রিপোর্টার ওই নারীর কাছে জানতে চান ত্ব-হাদের অবস্থানের ব্যাপারে কিছু জানতেন কিনা। নেতিবাচক উত্তর দেন তিনিও।

ত্ব-হার নিখোঁজ হওয়ার পর তোলপাড়ের কথা জেনেও নিশাত নাহার বিষয়টি কাউকে জানাননি। কেন জানাননি? জানতে চাইলে বলেন, ‘অন্তর’ (ত্ব-হার ডাক নাম) আমাকে কাউকে জানাতে নিষেধ করেছিল। সে যেদিন আমাদের বাড়িতে লোকজনসহ আসে, তখন আমার কাছে কয়েকদিনের জন্য আশ্রয় চায়। বলে- আমাকে কিছু লোক ফলো করছে। আমি কয়েকদিন এখানে থাকব। সেই জন্য আমি সিয়ামকেও বিষয়টি বলিনি।’নিশাত নাহার বলেন, ‘যতদিন তারা এই বাড়িতে ছিল, ততদিন তারা কেউ বাড়ির বাইরে যায়নি। এমনকি তাদের কারও মোবাইল ফোনও খোলা ছিল না।’কাছাকাছি কিছু দোকানদারকে জিজ্ঞেস করলেও তারা এই বাড়িতে গত কয়েকদিন কারা ছিলেন বলতে পারেননি। তারা কাউকে আসতেও দেখেননি।
আপনি ছাড়া আর কেউ কি ত্ব-হা এবং তার সঙ্গী-সাথীদের দেখেছে? জানতে চাইলে সিয়ামের মা নিশাত নাহার বলেন, ‘আমি ছাড়া আর কেউ আমার বাড়িতে দেখেনি। তারা তো কাউকে দেখানোর জন্য আসেনি। তারা এখানে আত্মগোপনে এসেছিল।’
আত্মগোপনে থাকা আলোচিত এই ধমীয় বক্তা ত্ব-হা নিয়ে দেশ বেশ আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়। গ্রামের এমন একটি বাড়িতে এতদিন বহিরাগত ৪ জনকে নিয়ে সাতদিন নিরাপদে অবস্থান করলেও আশ-পাশের লোকজন, বাড়ির কাজের মেয়ে, জনপ্রতিনিধি এমনকি আইন-শ্ঙ্খৃলা বাহিনীর কারো কেন নজরে আসেনি তা নিয়ে অনেকের মধ্যে প্রশ্ন উঠেছে।

সংবাদ টি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আজকের নামাজের সময়সুচী

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৫:২৮ পূর্বাহ্ণ
  • ১২:১২ অপরাহ্ণ
  • ১৫:৫৬ অপরাহ্ণ
  • ১৭:৩৬ অপরাহ্ণ
  • ১৮:৫৩ অপরাহ্ণ
  • ৬:৪৩ পূর্বাহ্ণ
bdgaibandha.news©2020 All rights reserved
themesba-lates1749691102